1. abrajib1980@gmail.com : মো: আবুল বাশার রাজীব : মো: আবুল বাশার রাজীব
  2. abrajib1980@yahoo.com : মো: আবুল বাশার : মো: আবুল বাশার
  3. chakroborttyanup3@gmail.com : অনুপ কুমার চক্রবর্তী : অনুপ কুমার চক্রবর্তী
  4. Azharislam729@gmail.com : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়
  5. bobinrahman37@gmail.com : Bobin Rahman : Bobin Rahman
  6. farhana.boby87@icloud.com : Farhana Boby : Farhana Boby
  7. mdforhad121212@yahoo.com : মোহাম্মদ ফরহাদ : মোহাম্মদ ফরহাদ
  8. harun.cht@gmail.com : চৌধুরী হারুনুর রশীদ : চৌধুরী হারুনুর রশীদ
  9. shanto.hasan000@gmail.com : রাকিবুল হাসান শান্ত : রাকিবুল হাসান শান্ত
  10. msharifhossain3487@gmail.com : Md Sharif Hossain : Md Sharif Hossain
  11. humiraproma8@gmail.com : হুমায়রা প্রমা : হুমায়রা প্রমা
  12. dailyprottoy@gmail.com : প্রত্যয় আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রত্যয় আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  13. namou9374@gmail.com : ইকবাল হাসান : ইকবাল হাসান
  14. mohammedrizwanulislam@gmail.com : Mohammed Rizwanul Islam : Mohammed Rizwanul Islam
  15. hasanuzzamankoushik@yahoo.com : হাসানুজ্জামান কৌশিক : এ. কে. এম. হাসানুজ্জামান কৌশিক
  16. masum.shikder@icloud.com : Masum Shikder : Masum Shikder
  17. niloyrahman482@gmail.com : Rahman Rafiur : Rafiur Rahman
  18. Sabirareza@gmail.com : সাবিরা রেজা নুপুর : সাবিরা রেজা নুপুর
  19. prottoybiswas5@gmail.com : Prottoy Biswas : Prottoy Biswas
  20. rajeebs495@gmail.com : Sarkar Rajeeb : সরকার রাজীব
  21. sadik.h.emon@gmail.com : সাদিক হাসান ইমন : সাদিক হাসান ইমন
  22. safuzahid@gmail.com : Safwan Zahid : Safwan Zahid
  23. mhsamadeee@gmail.com : M.H. Samad : M.H. Samad
  24. Shazedulhossain15@gmail.com : মোহাম্মদ সাজেদুল হোছাইন টিটু : মোহাম্মদ সাজেদুল হোছাইন টিটু
  25. shikder81@gmail.com : Masum shikder : Masum Shikder
  26. showdip4@gmail.com : মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ : মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ
  27. shrabonhossain251@gmail.com : Sholaman Hossain : Sholaman Hossain
  28. tanimshikder1@gmail.com : Tanim Shikder : Tanim Shikder
  29. riyadabc@gmail.com : Muhibul Haque :
  30. Fokhrulpress@gmail.com : ফকরুল ইসলাম : ফকরুল ইসলাম
  31. uttamkumarray101@gmail.com : Uttam Kumar Ray : Uttam Kumar Ray
  32. msk.zahir16062012@gmail.com : প্রত্যয় নিউজ ডেস্ক : প্রত্যয় নিউজ ডেস্ক
কীভাবে ইউক্রেন দীর্ঘমেয়াদি যুদ্ধে জিতবে? - দৈনিক প্রত্যয়

কীভাবে ইউক্রেন দীর্ঘমেয়াদি যুদ্ধে জিতবে?

  • Update Time : সোমবার, ৪ জুলাই, ২০২২
  • ৩৪২ Time View

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ চলছে পাঁচ মাস ধরে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা চালায় রাশিয়া। হামলা ঠেকাতে শক্ত হাতে প্রতিরোধ গড়ে তোলে ইউক্রেনও। যুদ্ধের শুরুতে, স্বল্প মেয়াদে ইউক্রেন জয়ী হয়েছে বলা চলে। প্রযুক্তির ব্যবহার বিশেষ করে মোবাইল ফোন কাজে লাগিয়ে ও নিজস্ব সম্পদ নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়া ইউক্রেন সেনাদের আক্রমণের মুখে কিয়েভ দখলের পরিকল্পনা ভেসতে যায় রাশিয়ার।

রাজধানী কিয়েভ থেকে দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের শহরের দিকে অগ্রসর হয় রুশ সেনারা। কিন্তু এখন যুদ্ধের মেয়াদ বাড়ছে। এতে অস্ত্র, জীবন এবং অর্থ সবই খোয়া যাবে যতক্ষণ না একপক্ষ লড়াই করার ইচ্ছা হারায়। এখন পর্যন্ত দীর্ঘময়াদি যুদ্ধে রাশিয়া আবারও অবস্থান শক্ত করে ফেলেছে। তবে লড়াই শেষ না হওয়া পর্যন্ত জয়-পরাজয় নির্ধারণ করা মুশকিল।

সম্প্রতি রুশ বাহিনী পূর্বাঞ্চলীয় শহর সেভেরোদোনেৎস্ক দখল করেছে। এবার রাশিয়ার সেনাবাহিনী ও ইউক্রেনের বিচ্ছিন্নতাবাদীরা দেশটির গুরুত্বপূর্ণ লিসিচানস্ক শহরের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। লিসিচানস্ক দখলের মধ্য দিয়ে পুরো লুহানস্ক অঞ্চল স্বাধীন হয়েছে বলে দাবি করেছে রাশিয়া।

দেশটির পশ্চিমে, ইউক্রেনের নিয়ন্ত্রিত শহর স্লোভিয়ানস্কও হুমকির মধ্যে পড়েছে। সেখানে গোলাগুলিতে কমপক্ষে ছয়জন নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে। এটি দোনেৎস্ক অঞ্চলে, যা লুহানস্কের সঙ্গে সম্পৃক্ত, যেটি ডনবাস শিল্পাঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত।

ইউক্রেনের নেতারা বলছেন, তাদের কাছে অস্ত্র নেই এবং গোলাবারুদও নেই। তাদের সরকার মনে করে প্রতিদিন ২০০ জন সেনা মারা যাচ্ছে।

সৌভাগ্যক্রমে ইউক্রেনের জন্য এটিই শেষ নয়। রাশিয়ানদের অগ্রগতি কমে গেছে এবং ব্যয়বহুল হয়ে পড়েছে যুদ্ধ। ন্যাটো-সমৃদ্ধ অস্ত্র, নতুন কৌশল ও পর্যাপ্ত আর্থিক সাহায্যের মাধ্যমে ইউক্রেনে রাশিয়ার সেনাবাহিনীকে প্রতিহত করার সুযোগ তৈরি হয়েছে। ইউক্রেনের রাশিয়ার কাছ থেকে হারানো অঞ্চল পুনরুদ্ধার করা কঠিন। তবে ভ্লাদিমির পুতিনের অগ্রসরতা কমিয়ে দিতে পারে এবং একটি গণতান্ত্রিক, পশ্চিমমুখী রাষ্ট্র হিসেবে আবির্ভূত হতে পারে দেশটি। কিন্তু তা করতে হলে স্থায়ীভাবে সমর্থন প্রয়োজন। যেটি এখনও সন্দিহান।

এমন পরিস্থিতিতে একটি দীর্ঘ যুদ্ধ রাশিয়ার জন্য বাস্তব। উভয় পক্ষই প্রচুর পরিমাণে গোলাবারুদ ব্যবহার করছে, তবে রাশিয়ার আরও বেশি সক্ষমতা রয়েছে। রাশিয়ার অর্থনীতি ইউক্রেনের চেয়েও সমৃদ্ধ এবং এর বিস্তৃত পরিসর রয়েছে। জয়ের পথ অন্বেষণে, রাশিয়া এ সপ্তাহে ক্রেমেনচুকের একটি শপিংমলে হামলা চালায়। এতে আতঙ্কিত ইউক্রেনীয়রা। ইউক্রেন বলছে, এই হামলা চালিয়ে যুদ্ধাপরাধ করেছে রাশিয়া। জয়ের জন্য প্রয়োজনে রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন তার নিজের জনগণের ওপর গুরুতর কষ্ট চাপিয়ে দেবেন।

পুতিনের শর্তে দীর্ঘ যুদ্ধে লড়তে হবে না। কিন্তু ইউক্রেনের বিপুল সংখ্যক অনুপ্রাণিত যোদ্ধা রয়েছে। এটি পশ্চিমের প্রতিরক্ষা শিল্প থেকে সরবরাহ করা হতে পারে। যেখানে ২০২০ সালে নিষেধাজ্ঞার আগে, ন্যাটোর অর্থনীতি রাশিয়ার চেয়ে দশ গুণেরও বেশি বড় ছিল।

রাশিয়ার অগ্রযাত্রাকে থামিয়ে যুদ্ধক্ষেত্রে ইউক্রেনের পরিবর্তন শুরু হয়। পুতিনের জেনারেলদের কাছে আরও অস্ত্র থাকবে, কিন্তু এখন যে অত্যাধুনিক ন্যাটো সিস্টেম আসছে তার পরিসীমা আরও বেশি। গত ৩০ জুন কৃষ্ণসাগরে ইউক্রেনের মালিকানাধীন স্নেক আইল্যান্ড থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয় রাশিয়া। যদিও পরে রাশিয়ার বিরুদ্ধে সেখানে ফসফরাস বোমা ফেলার অভিযোগ ওঠে।

যদি রাশিয়া যুদ্ধক্ষেত্রে স্থলপথে শক্তি হারাতে শুরু করে, তাহলে ক্রেমলিনে ভিন্নমত ও অন্তর্দ্বন্দ্ব ছড়িয়ে পড়তে পারে। পশ্চিমা গোয়েন্দা সংস্থাগুলো ধারণা করে যে পুতিনকে তার অধস্তনরা অন্ধকারে রেখেছেন। পশ্চিমারা নিষেধাজ্ঞা চাপিয়ে দিয়ে রাশিয়ার দীর্ঘ যুদ্ধের খরচ বাড়াতে পারে, যা রাশিয়ার অর্থনীতির জন্য স্থায়ী ক্ষতির হুমকিস্বরুপ।

পশ্চিমারা কী একই অবস্থানে থাকবে? এমন প্রশ্ন অনেকের। গত ২৩ জুন একটি শীর্ষ সম্মেলনে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ইউক্রেনকে প্রার্থীর মর্যাদা প্রদান করে এবং পরবর্তী দশকে গভীরভাবে সম্পৃক্ততার প্রতিশ্রুতি দেয়। জার্মানিতে আরেকটি শীর্ষ সম্মেলনে, জি-৭ নেতারা রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি নিশ্চিত করে।

তবুও ইউক্রেন একটি জটিল পরিস্থিতিতে রয়েছে। পশ্চিমা প্রতিরক্ষা শিল্পগুলো শক্তিশালী। কিন্তু ইউক্রেনের সরকারের মাসিক ৫ বিলিয়ন ডলার ঘাটতি রয়েছে এবং যুদ্ধের পরে দেশটির পুনর্গঠনের প্রয়োজন হবে। পশ্চিমে ইউক্রেনের জন্য জনসমর্থন মূল্যস্ফীতি থেকে শুরু করে নির্বাচনসহ ২০২৩ সালের মধ্যেই অনেক চাপের মুখে পড়বে।

একটি দীর্ঘ যুদ্ধের কারণে বৈশ্বিক ব্যয় বৃদ্ধি পাবে। পুতিন ইউক্রেনের বন্দর থেকে শস্য ও সূর্যমুখী তেলের রপ্তানি বন্ধ করায় দরিদ্র আমদানিকারক দেশগুলোতে অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছে। গ্যাস ও জ্বালানি তেলের সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। সার্বিক পরিস্থিতিতে এটি রাশিয়ার সঙ্গে পশ্চিমাদের একটি বিপর্যয়কর যুদ্ধ টেনে আনতে পারে।

আপনি দেখতে পাচ্ছেন পুতিন কোথায় যাচ্ছেন? তিনি যতটা পারেন ইউক্রেনের দখল নেবেন, বিজয় ঘোষণা করবেন এবং তারপর ইউক্রেনের ওপর তার শর্ত আরোপ করার জন্য পশ্চিমা দেশগুলোকে আহ্বান জানাবেন। বিনিময়ে, তিনি বাকি বিশ্বকে ধ্বংস, ক্ষুধা, ঠান্ডা এবং পারমাণবিক হুমকি থেকে রক্ষা করবেন।

এই শর্ত মেনে নেওয়া একটি গুরুতর ভুল হবে। ইউক্রেন স্থায়ী রুশ আগ্রাসনের মুখোমুখি হবে। পুতিন যত বেশি বিশ্বাস করেন যে তিনি ইউক্রেনে সফল হয়েছেন, তিনি তত বেশি বিদ্রোহী হয়ে উঠবেন। তিনি এই মাসে একটি বক্তৃতায় তার উচ্চাকাঙ্ক্ষার কথা তুলে ধরে বলেন, পিটার দ্য গ্রেট কীভাবে সুইডেনের কিছু অংশ দখল করেছিলেন। আজ তার পক্ষে যে অস্ত্র কাজ করবে তা দিয়ে তিনি আগামীকাল যুদ্ধ করবেন। এর অর্থ যুদ্ধাপরাধ এবং পারমাণবিক হুমকির আশ্রয় নেওয়া, বিশ্বকে ক্ষুধার্ত করা এবং ইউরোপকে হিমায়িত করা।

পরবর্তী যুদ্ধ প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় হল তাকে এই যুদ্ধে ঠেকানো। নেতাদের তাদের জনগণকে বোঝাতে হবে যে তারা শুধু ইউক্রেনের একটি বিমূর্ত নীতি রক্ষা করছে না, বরং তাদের সবচেয়ে মৌলিক স্বার্থ, তাদের নিজস্ব নিরাপত্তা। ইইউ-র শক্তির বাজারগুলোকে তীরে তুলতে হবে যাতে তা পরের শীতে ভেঙে না পড়ে। ইউক্রেনের হাতে আরও অস্ত্র থাকতে হবে।

আজ ক্রমবর্ধমান ঝুঁকি বাস্তব, কিন্তু যদি ইউক্রেনকে বাধ্য করা হয় তবে পুতিনের পারমাণবিক হুমকি বন্ধ হবে না। সেটি কেবল আরও বিপজ্জনক হয়ে উঠবে।

দীর্ঘ যুদ্ধে সাধারণ রাশিয়ানরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে ও ইউক্রেনীয়রা পুতিনের অসারতার জন্য যন্ত্রণা সহ্য করবে। জয়লাভ করার অর্থ হলো সম্পদকে মার্শাল করা এবং ইউক্রেনকে একটি কার্যকর, সার্বভৌম, পশ্চিমা-ঝুঁকিপূর্ণ দেশ হিসাবে উন্নীত করা- এমন একটি ফলাফল যা দেশটির বিদ্রোহী জনগণ কামনা করে। ইউক্রেন ও এর সমর্থকদের কাছে পুতিনকে পরাস্ত করার জন্য লোক, অর্থ এবং উপকরণ রয়েছে। তবে তাদের সবার কী ইচ্ছা আছে?

সূত্র: দ্য ইকোনমিস্ট

Please Share This Post in Your Social Media

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ দেখুন..