1. abrajib1980@gmail.com : মো: আবুল বাশার রাজীব : মো: আবুল বাশার রাজীব
  2. abrajib1980@yahoo.com : মো: আবুল বাশার : মো: আবুল বাশার
  3. chakroborttyanup3@gmail.com : অনুপ কুমার চক্রবর্তী : অনুপ কুমার চক্রবর্তী
  4. Azharislam729@gmail.com : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়
  5. farhana.boby87@icloud.com : Farhana Boby : Farhana Boby
  6. mdforhad121212@yahoo.com : মোহাম্মদ ফরহাদ : মোহাম্মদ ফরহাদ
  7. harun.cht@gmail.com : চৌধুরী হারুনুর রশীদ : চৌধুরী হারুনুর রশীদ
  8. shanto.hasan000@gmail.com : রাকিবুল হাসান শান্ত : রাকিবুল হাসান শান্ত
  9. humiraproma8@gmail.com : হুমায়রা প্রমা : হুমায়রা প্রমা
  10. dailyprottoy@gmail.com : প্রত্যয় আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রত্যয় আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  11. namou9374@gmail.com : ইকবাল হাসান : ইকবাল হাসান
  12. hasanuzzamankoushik@yahoo.com : হাসানুজ্জামান কৌশিক : এ. কে. এম. হাসানুজ্জামান কৌশিক
  13. masum.shikder@icloud.com : Masum Shikder : Masum Shikder
  14. niloyrahman482@gmail.com : Rahman Rafiur : Rafiur Rahman
  15. Sabirareza@gmail.com : সাবিরা রেজা নুপুর : সাবিরা রেজা নুপুর
  16. prottoybiswas5@gmail.com : Prottoy Biswas : Prottoy Biswas
  17. rajeebs495@gmail.com : Sarkar Rajeeb : সরকার রাজীব
  18. sadik.h.emon@gmail.com : সাদিক হাসান ইমন : সাদিক হাসান ইমন
  19. mhsamadeee@gmail.com : M.H. Samad : M.H. Samad
  20. Shazedulhossain15@gmail.com : মোহাম্মদ সাজেদুল হোছাইন টিটু : মোহাম্মদ সাজেদুল হোছাইন টিটু
  21. shikder81@gmail.com : Masum shikder : Masum Shikder
  22. showdip4@gmail.com : মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ : মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ
  23. tanimshikder1@gmail.com : Tanim Shikder : Tanim Shikder
  24. riyadabc@gmail.com : Muhibul Haque :
  25. Fokhrulpress@gmail.com : ফকরুল ইসলাম : ফকরুল ইসলাম
  26. uttamkumarray101@gmail.com : Uttam Kumar Ray : Uttam Kumar Ray
  27. msk.zahir16062012@gmail.com : প্রত্যয় নিউজ ডেস্ক : প্রত্যয় নিউজ ডেস্ক

টয়লেটের অভাবে ঝোপঝাড়ে মলত্যাগ করছেন রাণীশংকৈল উপজেলার একটি গ্রামের ৩২ পরিবার

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১১৬ Time View

বদরুল ইসলাম বিপ্লব, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: আর্থিক সংকটের কারণে টয়লেটের ব্যবস্থা করতে না পেরে ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার একটি গ্রামের ৩২টি পরিবারের সদস্যরা মলমূত্র ত্যাগ করছেন খোলা আকাশের নীচে বা ঝোপঝাড়ে। প্রত্যহ ভোরের সূর্য ফোটার আগেই ওইসব পরিবারের নারী পুরুষ সহ দেড়শ মানুষকে খোলা আকাশের নিচে সেরে নিতে হয় মলত্যাগের কাজ।

এ কারণে দুষিত হচ্ছে পরিবেশ। আক্রান্ত হচ্ছেন ডায়রিয়া আমাশয়সহ কৃমিজনিত বিভিন্ন রোগে।
জানা গেছে, ঠাকুরগাঁও জেলার রানীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ ঘনশ্যামপুর মৌজার একটি খাস পুকুরের জমি উদ্ধার করে গত বছরের জুন স্থানীয় ৩২জন ভুমিহীনকে বরাদ্দ প্রদান করে উপজেলা প্রশাসন। সে সময় সরকারি বরাদ্দ না থাকায় ওই খাস জমিতে গুচ্ছগ্রাম স্থাপন করা সম্ভব হয়নি। তবে বরাদ্দপ্রাপ্তরা নিজেদের উদ্যোগে বাড়িঘর নির্মান করে সেখানে বসবাস করে আসছেন। বরাদ্দপ্রাপ্তদের মধ্যে আদিবাসী হিন্দু মুসলিম ও হরিজন সম্প্রদায়ের মানুষজন রয়েছেন। ভূমিহীনরা সেখানে বসবাস করলেও তাদের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়নি স্বাস্থ্য সম্মত টয়লেটের। এ কারণে দরিদ্র সম্প্রদায়ের ওইসব বাসিন্দা প্রকৃতির ডাকে ছুটে যাচ্ছেন ঝোপঝাড়ে। এতে করে সেখানে বসবাসরত বাসিন্দারা ডায়রিয়া সহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন।

মালতি রাণি, শান্তু পাহানসহ কয়েকজন বাসিন্দা জানান, আমাদের বসবাসের জায়গা জমি না থাকায় গত বছর তৎকালীন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সোহাগ চন্দ্র সাহা আমাদেরকে বাসস্থানের জন্য তিন শতক করে জমি বরাদ্দ দিয়ে ৩২টি পরিবারকে এখানে বসবাস করার সুযোগ করে দেন। সরকারিভাবে কোনকিছু না দেওয়ায় আমরা ধার মহাজন করে মাথা গোঁজার ঘর নির্মান করি। কিন্তু অর্থাভাবে সুপেয় পানি ও স্বাস্থ্য সম্মত টয়লেটের ব্যবস্থা করতে পারিনি। এজন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী দপ্তরে অনেকদিন ঘুরেও কাজ হয়নি। ঘুরেও আমরা সরকারীভাবে স্যানিটেশন ব্যবস্থার আওতায় আসতে পারিনি।

স্থানীয়রা মিলে মিশে কিছু ছোট সাইজের টিউবওয়েল স্থাপন করে পাড়ার পানি সরবরাহের ভোগান্তি কিছুটা কমিয়েছি। তবে অর্থনৈতিক সংকটের কারণে স্থাপন করা সম্ভব হয়নি স্বাস্থ্য সম্মত টয়লেট।

তারা আক্ষেপ করে বলেন, দেশের নাগরিক হয়েও আমরা অবহেলিত। কেউ আমাদের খোঁজ রাখে না।
তারা সরকারে উর্দ্ধধন কর্তৃপক্ষের নিকট দাবী জানিয়ে বলেন, স্বাস্থ্য সম্মত টয়লেট সুপেয় পানির ব্যবস্থার পাশাপাশি তাদের ঘরবাড়িগুলো যেন সরকারী সহায়তার মধ্যে আনা হয়।

উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী তরিকুল ইসলাম বলেন, আমরা ১৩টি গুচ্ছগ্রামকে স্যানিটেশন ব্যবস্থার আওতায় আনতে ইতোমধ্যে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে পত্র দিয়েছি। অনুমোদন পেলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
উপজেলা চেয়ারম্যান শাহরিয়ার আজম মুন্না বলেন, এখনো মানুষ ঝোপঝাড়ে মলত্যাগ করছে এটা ভাবতে অবাক লাগছে। বিষয়টি আমি গুরুত্ব সহকারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেব।

Please Share This Post in Your Social Media

এই ক্যাটাগরির আরো নিউজ দেখুন..